বাঙ্গালী
Thursday 24th of August 2017
code: 80891
পরনিন্দা ও তওবা
সংগ্রহ: মুহাম্মাদ সুলতানিয়্যেহ

মরহুম আয়াতুল্লাহ হাজ শেইখ গোলাম রেজা ইয়াযদী হতে বর্ণিত: একদিন তাঁর মা তাঁর সম্মুখে কারো সম্পর্কে গিবত (নিন্দা) করলেন। তিনি নিজ মাতাকে বললেন: মা তুমি তওবা কর! কিন্তু তার মা তার কথায় তোয়াক্কা করলো না। অতঃপর তিনি নিজেকে আঘাত করতে শুরু করলেন এবং বলতে লাগলেন: যতক্ষণ তুমি তওবা না করবে, ততক্ষণ আমি নিজেকে এভাবে আঘাত করতে থাকবো। তার মা তাকে এ অবস্থায় দেখে খুবই কষ্ট পেলেন। যাতে তিনি এরচেয়ে বেশী আর নিজেকে আঘাত না করেন তাই তিনি তওবা করলেন। এখানে প্রশ্ন জাগে যে, কেন হাজ শেইখ গোলাম রেজা ইয়াযদী নিজের মাকে তওবা করতে বললেন? কি কারণে তিনি নিজের মাকে তওবা করতে বাধ্য করার লক্ষ্যে নিজেকে আঘাত করতেও কুণ্ঠা বোধ করলেন না? উত্তর হল: এ মহান ব্যক্তিত্ব আল্লাহ এবং তাঁর মনোনিত বান্দাদের বিষয়ে এবং কেয়ামত ও বিচার দিবসের উপর পরিপূর্ণ ঈমান আনতে সক্ষম হয়েছিলেন। তাই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, তার মা আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করায় জাহান্নামের কঠিন আযাবের মুখোমুখি হবেন। যেহেতু তিনি নিজ মাতাকে প্রচণ্ড ভালবাসতেন তাই মাকে জাহান্নামের আগুন হতে বাঁচানোর লক্ষ্যে তিনি এ মাধ্যমের আশ্রয় নেন। এ ঘটনা হতে অপর যে, বিষয়টি স্পষ্ট হয় তা হল: যেহেতু যে কোন মুহূর্তে মানুষের মৃত্যু ঘনিয়ে আসতে পারে, তাই জ্ঞানী ব্যক্তিরা সব সময়ই এমন অবস্থায় নিজেকে প্রস্তুত রাখে যে অবস্থাকে মহান আল্লাহ ভালবাসেন। আর যা কিছু আল্লাহ পছন্দ করেন না তা যদি কখনও আঞ্জাম দিয়ে ফেলে তবে সাথে সাথে তওবা করে তা নিজের হতে দূর করে দেন।

user comment
 

latest article

  হজ্ব
  হজ্জ্ব : ইসলামী ঐক্যের প্রতীক
  ইমাম হাদী (আ.) এর জন্ম বার্ষিকী
  হজ্জ্ব : ইসলামী ঐক্যের প্রতীক
  নামাজ : নিরবচ্ছিন্ন পবিত্রতা ও খোদা ...
  মৃত্যু-পরবর্তী জীবন প্রমাণের ...
  পরকালের জন্য প্রস্তুতি এবং আল্লাহর আদেশ ...
  ইসলামে বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের ...
  সূরা হুদ; (১৯তম পর্ব)
  ‘হুকম’ ও ‘ফতওয়া’ এ দুই পরিভাষার মধ্যে ...